২৩ অক্টোবর, ২০২০ || ৮ কার্তিক ১৪২৭

শিরোনাম
  বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ‘টেকসই ভবিষ্যৎ’ নিশ্চিতের আহ্বান প্রধানমন্ত্রী        অবশেষে হাসপাতাল ছাড়লেন ইউএনও ওয়াহিদা        অবশেষে হাসপাতাল ছাড়লেন ইউএনও ওয়াহিদা     
২০০

আপনি না থাকলে কে দেশ চালাবে, প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে রাঙ্গা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১০ জুন ২০২০  

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (বাঁয়ে) ও বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা। ছবি : সংগৃহীত

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (বাঁয়ে) ও বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা। ছবি : সংগৃহীত

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা না থাকলে (বেঁচে) কে দেশ চালাবে, তা নিয়ে নিজের উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতীয় পার্টির (জাপা) মহাসচিব ও বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা। আজ বুধবার জাতীয় সংসদের অষ্টম অধিবেশনের শুরুর দিন এ উদ্বেগ প্রকাশ করেন বাঙ্গা।

নিজের বক্তব্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণকালে প্রধানমন্ত্রীর স্বাস্থ্যঝুঁকির বিষয়টি বিবেচনা করে তাকে সশরীরে সংসদে না এসে ভার্চ্যুয়াল ব্যবস্থাপনায় সংসদের কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করার অনুরোধ করেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব।

সংসদে জাতীয় সংসদের অষ্টম অধিবেশনের শুরুর দিনে শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনাকালে মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, ‘আমি যুক্তরাষ্ট্র, নিউজিল্যান্ড ও কানাডা এই তিনটি দেশের কথা জানি। তারা ভার্চ্যুয়াল পদ্ধতিতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পার্লামেন্ট পরিচালনা করছেন। তাদের অনেকেই সংসদে আসছেন না। সংসদ সদস্য হিসেবে আমাদের সংসদে আসতে অসুবিধা নেই। কিন্তু জাতির পিতার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরাসরি সংসদে না এসে যদি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বাড়িতে থেকে কথা বলতেন, আমরা নিশ্চিত হতাম।’

রাঙ্গা বলেন, ‘দেশের যে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড চলছে, এগুলো কোনো না কোনো একদিন আমরা করতে পারব। কিন্তু উনি (শেখ হাসিনা) না থাকলে আমাদের সবার জন্য... একটা অসুবিধা বোধ করি, দেশটা চালাবে কে? বাংলাদেশের জন্য বঙ্গবন্ধু কন্যাকে প্রয়োজন রয়েছে। আপনাকে আমি অনুরোধ করব, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, যদি সম্ভব হয় আপনি বাসা থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই পার্লামেন্টে অংশগ্রহণ করুন।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাঙ্গার এ প্রস্তাব নাকচ করে দিয়ে বলেন, ‘জন্ম যখন হয়েছে মরতেই হবে। তাই গুলি খেয়ে মরি, বোমা খেয়ে মরি, করোনাভাইরাসে মরি, অসুস্থ হয়ে মরি। এখন কথা বলতে বলতেও মরে যেতে পারি। মৃত্যু যখন অবধারিত, তখন মৃত্যুকে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। আমি ভয় কখনো পাইনি, পাবো না। আল্লাহ জীবন দিয়েছেন, জীবন আল্লাহ একদিন নিয়ে যাবেন—এটাই আমি বিশ্বাস করি। তিনি মানুষকে কিছু কাজ দেন, সেই কাজটুকু করতে হবে। আল্লাহর লিখিত আমার ওপর যে দায়িত্ব অর্পণ করেছেন, যতক্ষণ এই কাজটুকু শেষ না হবে, ততক্ষণ কাজ করে যাব। কাজ শেষে আমিও চলে যাব। এ নিয়ে চিন্তার কিছু নেই।’

এ সময় জীবনের মায়া করলে কিংবা ভীত হলে ৭৫-এ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর তিনি দেশে আসতেন না বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আরও পড়ুন
রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত