শ্বশুর বাড়ির পিটুনি খেলেন হিরো আলম

বগুড়া প্রতিনিধি

বাংলাদেশ প্রজন্ম ৭১

প্রকাশিত : ০৯:৫৭ পিএম, ৬ মার্চ ২০১৯ বুধবার

পুরোনো ছবি

পুরোনো ছবি

বউকে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠানোর অভিযোগ উঠেছে আলোচিত মডেল-অভিনেতা আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলমের বিরুদ্ধে। গতকাল মঙ্গলবার রাত ২টার দিকে বগুড়ায় হিরো আলমের নিজের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। 

জানা গেছে, পরকীয়া কিংবা দ্বিতীয়বার বিয়ে করা নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে বিরোধের জের ধরে তাকে মারপিট করেন হিরো আলম। এ ঘটনা জানতে পেরে শ্বশুর বাড়ির লোকজনও তাকে পাল্টা মারধর করেন বলে আভিযোগ করেন হিরো আলম।

ওই ঘটনার পর হিরো আলমের স্ত্রী সাবিহা আক্তার সুমিকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের ক্যাজুয়ালটি বিভাগের ১ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে সুমি পরিবারের সদস্যদের হিরো আলমকে মারধর করার ঘটনায় শ্বশুরসহ পাঁচজনের নামে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন আলোচিত এই অভিনেতা।

লিখিত অভিযোগে উল্লেখ আছে- স্ত্রীর সঙ্গে দাম্পত্য কলহের জের নিয়ে মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে তার শ্বশুর সাইফুল ইসলাম ও তার স্ত্রী সাদিয়া বেগম সুমির নেতৃত্বে পাঁচজনের একটি দল তাকে মারধর করে। কাঠের বাটাম দিয়ে তার শরীরে আঘাত করা হয়।

অপরদিকে হিরো আলমের বিরুদ্ধেও মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তার শ্বশুর সাইফুল ইসলাম।

বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের ক্যাজুয়ালটি বিভাগে গিয়ে আলমের স্ত্রী সুমির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত সোমবার রাতে হিরো আলম বগুড়া শহরতলীর এরুলিয়া গ্রামে তার বাড়িতে আসেন। রাতে বিছানায় শুয়ে একটানা তিন ঘণ্টা ঢাকার এক নারীর সঙ্গে ফোনে কথা বলেন তিনি। এ নিয়ে প্রতিবাদ জানালে তার সঙ্গে বিবাদে জড়ান হিরো আলম।

পরদিনও একই ঘটনা ঘটনায় স্বামীর সঙ্গে তর্কে জড়ান সুমি। একপর্যায়ে তাকে মারধর করতে শুরু করেন হিরো আলম। সুমির অভিযোগ, তার স্বামী ঢাকায় আরেকটি বিয়ে করেছেন। এ কারণেই বগুড়া আসলেও সংসারের কোনো খরচ তিনি বহন করেন না।  এমনকি তার সন্তানেরও কোনো খোঁজ রাখেন না। 

তিনি আরও জানান, এসব ব্যাপারে আলমের সঙ্গে কোনো কথা বললেই মানসিক ও শারীরিকভাবে নির্যাতন করতেন তিনি।

হিরো আলমের শ্বশুর সাইফুল ইসলাম বলেন, গতকাল মঙ্গলবার রাতে হিরো আলম তার মেয়েকে মারধর করেন।  এ খবর পেয়ে তিনি মেয়ের বাড়ি যান। পরে সেখান থেকে সুমিকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের ক্যাজুয়ালটি বিভাগে ভর্তি করান তিনি।

সাইফুল বলেন, সুমিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে জেনে আলম থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।

এ সব বিষয়ে কথা বলতে হিরো আলমের মোবাইল নম্বরে বার বার ফোন করা হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।

এ বিষয়ে বগুড়া সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুর রহিম জানান, মঙ্গলবার রাতে হিরো আলম থানায় হাজির হয়ে তার শরীরে জখমের চিহ্ন দেখান। এ কারণে একটি লিখিত অভিযোগ জমা নেওয়া হয়েছে। তবে মারপিটের অভিযোগটি অনুসন্ধান করতে গিয়ে জানা যায়, হিরো আলমের মারধরে তার স্ত্রী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।  তারা একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।